“আমার শাসনে সাড়ে চার বছরে একটাও দাঙ্গা হয়নি”, ভোটের মুখে ঘোষণা করলেন যোগী আদিত্যনাথ

উত্তরপ্রদেশের সাড়ে চার বছরের বিজেপি শাসনের একটিও দাঙ্গার ঘটনা ঘটেনি। উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনের ছয় মাস আগে সদর্পে একথা ঘোষণা করলেন সেখানকার মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। একসময় যে উত্তরপ্রদেশে দাঙ্গা-হাঙ্গামা নিত্য নৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছিল, সেটাই এখন পুরোপুরি হিংসামুক্ত রাজ্য। এমনটাই দাবি করেছেন তিনি।

বিগত সাড়ে চার বছর আগে যোগী আদিত্যনাথ যখন মুখ্যমন্ত্রী হয়ে উত্তরপ্রদেশের ক্ষমতায় আসেন, তখন রাজ্যের সংখ্যালঘুদের নিয়ে রীতিমতো উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল।

তথাকথিত বুদ্ধিজীবীদের একটা বড় অংশ আশঙ্কা করেছিলেন, যোগীর শাসনে উত্তরপ্রদেশে দাঙ্গা-হাঙ্গামা রোজকার ঘটনা হয়ে দাঁড়াবে। কিন্তু যোগীর মুখ্যমন্ত্রিত্বের সাড়ে চার বছর পর নাকি উত্তরপ্রদেশের ছবিটা পুরো পাল্টে গিয়েছে। অন্তত যোগী আদিত্যনাথের দাবি অনুযায়ী তার শাসিত উত্তরপ্রদেশ বর্তমানে দাঙ্গামুক্ত।

রবিবার উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে সাড়ে চার বছর পূর্ণ করেছেন। তিনি এই সাড়ে চার বছরের সাফল্য তুলে ধরতে একটি পুস্তিকা প্রকাশ করেছেন। পুস্তিকায় তাঁর দাবি, “উত্তরপ্রদেশের মতো রাজ্যে সাড়ে চারবছর ধরে সুশাসন বজায় রাখাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

উত্তরপ্রদেশ সম্পর্কে গোটা দেশের ধারণাই পালটে গিয়েছে। এটা সেই উত্তরপ্রদেশ যেখানে একটা সময় দাঙ্গাটা ট্রেন্ড হয়ে দাঁড়িয়েছিল। কিন্তু গত সাড়ে চার বছরে এখানে একটাও দাঙ্গা হয়নি।” উত্তরপ্রদেশের প্রধানমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের এই মন্তব্য যদি সত্যি হয় তা নিঃসন্দেহে খুব বড় একটা সাফল্য।

উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ কূর্শিতে বসা কালীন সময়ে রাজ্যের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে সাম্প্রদায়িক অশান্তির বাতাবরণ ছিল। মুজফফরপুর দাঙ্গার স্মৃতি তখনও মানুষের মনে। সে দিক থেকে সারা রাজ্যের শান্তির বাতাবরণ তৈরি করার ক্ষেত্রে যোগী আদিত্যনাথের ভূমিকা প্রশংসনীয়।

তবে স্থানীয়রা মনে করেন, যোগী আদিত্যনাথ মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে আসার পর উত্তরপ্রদেশে বড় কোন দাঙ্গার ঘটনা না ঘটলেও সংখ্যালঘুদের মধ্যে এক অজানা ভীতি রয়ে গিয়েছে। তাছাড়া ছোটখাটো কারণে ধর্মীয় দাঙ্গা মাঝেসাজেই ঘটছে যোগীর রাজ্যে, যার বেশিরভাগ জনসমক্ষে আসছে না।