“তৃণমূল দল দুর্বল নয়”, মেদিনীপুরের সভা থেকে বার্তা মমতার

শুভেন্দু অধিকারীর মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর মেদিনীপুরে প্রথম জনসভায় অধিকারী পরিবারের নাম নিলেন না তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে নাম না করেই বুঝিয়ে দিলেন অধিকারীদের ছাড়াই জেলায় চলতে তৈরি দল।

ব্ল্যাক মেল, দর কষাকষি করে নির্বাচনের আগে তৃণমূলকে দুর্বল করা যাবে না৷ নাম না করে মেদিনীপুরের সভা থেকে এ ভাবেই কি শুভেন্দু অধিকারীকে বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়? তৃণমূল নেত্রী ইঙ্গিতপূর্ণ ভাবে বিজেপি দল এবং তাদের বন্ধু-দের নিশানা করেই এই মন্তব্য করেন৷ যেহেতু শুভেন্দু বিজেপি-তে যোগ দেবেন বলে প্রবল জল্পনা চলছে, তাই নন্দীগ্রামের বিধায়ককে উদ্দেশ করেই মমতা এই বার্তা দিলেন বলেই মনে করা হচ্ছে৷

এদিন মমতা বিরোধীদের বিরুদ্ধে ঘর ভাঙার অভিযোগ তুলে বলেন, ‘সিপিএম – কংগ্রেস – বিজেপি ঘোলা জলে মাছ ধরতে নেমেছো। ভাবছো এভাবেই চলবে? শুধু গালাগালি দিয়ে বেড়াচ্ছো। অনেক টাকা ছড়াচ্ছো।

দাঙ্গা লাগাচ্ছো, মিথ্যে কথা বলছো, কুৎসা করছো, চক্রান্ত করছো, অপপ্রচার করছো, সরকার ভাঙছো, দল ভাঙছো, ঘর ভাঙছো, মানুষের ভালবাসা ভাঙছো, জেনে রেখে দেও, ভারতবর্ষের মাটি থেকে তোমাদের উৎখাত হওয়ার সময় চলে এসেছে। আগে নিজেদের বাঁচাও’।

কড়া আক্রমণ শানিয়ে বিজেপিকে ‘লুঠেরা’দের দল বলেও দেগে দেন তৃণমূল সুপ্রিমো। তাঁর কথায়, ‘অনেকের অনেক টাকা হয়েছে। তাঁরাই সেই টাকা বাঁচাতে বিজেপি করছে। লুঠেরাদের দল। সব লুঠেরাদের আশ্রয় দিচ্ছে ওরা। তৃণমূলকে এভাবে খাবলা মারা যাবে না।’

শাসক দলের গোষ্ঠী রাজনীতিতে অধিকারী পরিবারের বিরোধী বলেই পরিচিত রামনগরের বিধায়ক অখিল গিরি। এদিন মঞ্চে তাঁর প্রসঙ্গে তুলে ধরেন মমতা। শুভেন্দুকে বার্তা দিতে স্মৃতিচারনা করে জানিয়েছেন, ‘তৃণমূল কংগ্রেস যখন তৈরি করেছিলাম, কাঁথি থেকে প্রথম অখিল গিরি ল’ড়াই করেছিল।

সেদিন হয়তো আমরা জিততে পারিনি। মাত্র ২২ দিনে কিন্তু আমরা দ্বিতীয় হয়েছিলাম। তৃণমূল কংগ্রেস অত দুর্বল নয়৷ যদি কেউ মনে করে তৃণমূল কংগ্রেসকে ব্ল্যাকমেলিং করব, দর কষাকষি করব, তৃণমূল কংগ্রেসকে নির্বাচনের সময় দুর্বল করব৷

তাহলে সেই বিজেপি দল এবং বিজেপি দলের যারা বন্ধুদের বলব আগুন নিয়ে খেলবেন না, আর যাকে পারেন জব্দ করতে, তৃণমূল কংগ্রেসকে পারবেন না৷ কারণ তৃণমূল কংগ্রেস মানুষকে আলিঙ্গন করে বেঁচে আছে৷’

এমনকী দলের বিরুদ্ধে শুভেন্দুর অনুগামীরা যে অভিযোগ তুলেছেন তাকেও কটাক্ষ করেন মমতা। বলেন, ‘সবাই না কি দুর্নীতিবাজ, আর ওনারা না কি সাধুপুরুষ’। শুভেন্দুর বিদ্রোহের জন্য বিজেপিকে কাঠগড়ায় তুলে মমতা বলেন, ‘দেখুন কী ভাবে দল ভাঙছে।

কী ভাবে টাকা করছে, কী ভাবে সরকার ভাঙছে, একটার পর একটা সরকার ভেঙেছে এই সব করে। যতই সরকার ভাঙার চেষ্টা করুক না কেন, আমাদের আজকের সভা থেকে একটাই শপথ, ২০২১ আমাদের, ২০২১ বাংলার’।