“হাত চিহ্নে ভোট দিন” পুরানো আন্দাজে বললেন বিজেপি নেতা জ্যোতিরাদিত্য!

বিহারের সাথে সাথে মধ্যপ্রদেশে মসনদের ল’ড়াই। ২৮টি আসনের উপনির্বাচনে জয় শাসক-বিরোধী উভয়ের পক্ষেই খুব জরুরি। বিজেপি সরকারকে সরিয়ে রাজ্যের আসনে বসতে গেলে ২৮টি আসনেই জিততে হবে কমলনাথের নেতৃত্বাধীন কংগ্রেসকে।

গোয়ালিয়রের মহারাজা তথা প্রাক্তন কংগ্রেস নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া বর্তমানে বিজেপি তে নিজের ক্ষমতা জাহির করতে ব্যস্ত। কিন্তু পুরনো অভ্যাসবশত হাত চিহ্নে ভোট দেওয়ার কথা বলে ফেললেন তিনি। কংগ্রেসের জবাব,”ঠিকই বলেছেন জ্যোতিরাদিত্য। রাজ্যে শুধু হাত চিহ্নেই ভোট পড়বে।”

রবিবার ডবরা কেন্দ্রে জ্যোতিরাদিত্য ভোট প্রচারের উদ্দেশ্যে গিয়েছিলেন ইমারতি দেবীর পরিবর্তে। সেখানে জনসভায় তিনি বলেন,”হাত মুঠো করুন এবং আমাদের আশ্বস্ত করুন, ৩ নভেম্বর ইভিএম-এ শুধু হাত চিহ্নেই ভোট পড়বে।”

জ্যোতিরাদিত্যর এই মন্তব্য অবাক করে দিয়েছে সকলকে। প্রদেশ কংগ্রেসের পক্ষ থেকে সেই ভিডিও টুইট করে লেখা হয়েছে,” সিন্ধিয়াজি, মধ্যপ্রদেশের মানুষ আপনাকে আশ্বস্ত করছে, যে তাঁরা হাতের বাটন টিপেই ৩ নভেম্বর ভোট দেবেন”।

৩ নভেম্বর মধ্যপ্রদেশ বিধানসভার ওই ২৮টি আসনে উপনির্বাচন। কমলনাথের দল শিবরাজ সিং চৌহান কে পরাস্ত করতে উঠে পড়ে লেগেছে। এই চ্যালেঞ্জ খুব কঠিন তবুও আশাবাদী প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী।

রাজ্যবাসীর উদ্দেশে তিনি বলেন,”পুরো দেশ দেখেছে, কী ভাবে ক্ষমতা হারাতে হয়েছে কংগ্রেসকে৷ এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানোর সুবর্ণ সুযোগ পেয়েছেন আপনারা। এটি হাতছাড়া করবেন না৷ নিজেদের অধিকার প্রয়োগ করুন, কংগ্রেসকে ফিরিয়ে আনুন৷”

জ্যোতিরাদিত্য এবং ২৩ জন কংগ্রেসি বিধায়ক দল ত্যাগ করলে তাদের সরকার যে সংখ্যালঘু হয়ে পড়েছিল সে কথা উল্লেখ করেন কমলনাথ। এরপর ভোটে জয়ী হয়ে ক্ষমতায় ফেরে বিজেপি। শিবরাজ সিং চৌহান রাজ্যের ক্ষমতায় বসেন।

এদিন জ্যোতিরাদিত্য বলেন,”গোটা দেশ আজ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আদর্শে, তাঁরই দেখানো পথে হেঁটে উন্নয়নের শরিক হয়েছে৷ এই পরিস্থিতিতে মধ্যপ্রদেশকেও তালে তাল মিলিয়ে চলতে হবে৷

আপনারাই ভেবে দেখুন, কোন পথটা ঠিক, কোনটা ভুল৷ এমন কোনও কাজ করবেন না, যাতে পরে আফসোস থেকে যায়” কিন্তু কোনো তিনি হাত চিহ্নে ভোট দেওয়ার কথা বলে ফেললেও দলবদলে আফসোস নেই জ্যোতিরাদিত্যর।