ইতিহাসে প্রথমবার! মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত

জীবনে তিন-তিনবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ল’ড়ছেন তিনি। এতদিনে সফল হলেন। ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হারিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন জো বাইডেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট হলেন কৃষ্ণাঙ্গ ও ভারতীয় বংশোদ্ভূত এক মহিলা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উপরাষ্ট্রপতি হিসেবে নির্বাচিত হলেন কমলা হ্যারিস।

বাইডেন আগস্ট মাসে ঘোষণা করে বলে দেন যে, ডেমোক্রেটরা যদি ভোটের যু’দ্ধে জয়লাভ করে,তাহলে তাহলে ভাইস প্রেসিডেন্টের পদে বসানো হবে কমলা হ্যারিসকে। ব্যাটেলগ্রাউন্ড পেনসিলভেনিয়ার ল’ড়াইয়ে জয় লাভ করলেন বাইডেন। অর্থাৎ হোয়াইট হাউসের প্রবেশের অনুমতি পত্র পেলেন তিনি।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে কমলা হ্যারিসই হলেন প্রথম মহিলা উপরাষ্ট্রপতি। কৃষ্ণাঙ্গ ও ভারতীয় বংশোদ্ভূত মহিলা প্রবেশ করলেন হোয়াইট হাউসে।

ইতিপূর্বে একাধিকবার বেশ কিছু রেকর্ড ভেঙেছেন ক্যালিফোর্নিয়ার সেনেটর কমলা হ্যারিস। সানফ্রান্সিকোর প্রথম মহিলা ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি হলেন কমলা হ্যারিস। তিনি হলেন প্রথম ক্যালিফোর্নিয়ার কৃষ্ণাঙ্গ অ্যাটর্নি জেনারেল।

কমলা হ্যারিসের মা ভারতবর্ষ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিলেন। বাবা জামাইকা থেকে এসেছিলেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ভারতীয় ও কৃষ্ণাঙ্গদের ভোট যাতে নিজের ঝুলিতে পরে সে দিকে লক্ষ্য রেখেই বাইডেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে কমলা হ্যারিসকে নির্বাচিত করেন।

কমলা হ্যারিস ১৯৬৪ সালে ওকল্যান্ডে জন্ম গ্রহণ করেন। আইন বিষয়ে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন তিনি। পাস করার পর অ্যালামেডা কাউন্টি ডিস্ট্রিক্ট অ্যাট্রর্নির অপিসে আট বছর কাজ করেছেন তিনি। ২০০৪ সালে তিনি সানফ্রান্সিসকোর ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি হিসেবে নিয়োজিত হন।

২০১১ সাল পর্যন্ত সেখানে কাজ করেছেন কমলা হ্যারিস। ২০১১ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত ক্যালিফোর্নিয়ার এটর্নি হিসেবে কাজ করেছেন তিনি। কমলা হ্যারিস এমনিতেই সংস্কার পন্থী। ক্যালিফোর্নিয়ার আইনে একাধিক পরিবর্তন এনেছেন কমলা হ্যারিস। প্রথমবার কেউ ড্রা*’গ নিয়ে ধরা পড়লে তাকে পড়াশোনা ও কাজের সুযোগ দেওয়া হবে,সানফ্রান্সিকোয় তিনি প্রথম চালু করেছিলেন।