“দিদি ও দিদি’র থেকে বেশি ক্ষতি ‘বারমুডা’ মন্তব্যে!”, মোদি ও দিলীপ ঘোষকে আক্রমণ তথাগতর

বিধানসভা ভোটে বিজেপির শোচনীয় পরাজয়ের জন্য বিজেপি নেতা তথাগত রায় বহুবার ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন দলের বিরুদ্ধে। দিনের পর দিন বিজেপি থেকে দলত্যাগিদের সংখ্যা যেভাবে বেড়েছে তাতে আক্রমণের সুর চড়িয়েছেন তিনি। উপনির্বাচনে বিজেপির শোচনীয় পরাজয়ের জন্য প্রাক্তন রাজ্য বিজেপি সভাপতি অর্থাৎ দিলীপ ঘোষকে এবার সরাসরি তোপ দাগলেন তথাগত রায়।

দিলীপ ঘোষের পাশাপাশি তথাগত রায় এদিন কাঠগড়ায় তুললেন খোদ মোদিকে। রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে ফেরার পর থেকে তথাগত রায় বেসুরো হয়েছেন। দলবদলু তৃণমূলীরা নয়, বরং বিজেপির আদি নেতারাই লোকসভা নির্বাচনে ১৮ টি আসন এনে দিয়েছিল বিজেপিকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনটাই দাবি করেছেন তিনি। এবারের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির শোচনীয় পরাজয়ের জন্য সরাসরি মোদি ও দিলীপ ঘোষকে দুষলেন তথাগত।

এদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় তথাগত রায় লেখেন, “সুর করে দিদি-দিদি ডাকায় যা ক্ষতি হয়েছে, তার চেয়ে অনেক বেশি ক্ষতি হয়েছে মমতাকে বারমুডা পরতে বলায়। কারণ এর মধ্যে অশ্লীল ইঙ্গিত আছে। “বারমুডা” কথাটা বোধ হয় নতুন শেখা হয়েছিল। নিচুস্তরের মাস্তানির সুরে “পুঁতে দেব”, “শবদেহের লাইন লাগিয়ে দেব”, এই সব কথাতেও প্রভূত ক্ষতি হয়েছে।” প্রবীণ বিজেপি নেতার এই মন্তব্য নিয়ে দলের অন্দরে অসন্তোষ দেখা গিয়েছে।

এদিন টুইট করে তথাগত রায় লেখেন, “আমি প্রকাশ্যে বিজেপি নেতাদের নিন্দা করেছি বলে কেউ কেউ মর্মাহত হয়েছেন। কিন্তু নির্বাচনের আগে প্রকাশ্যে একটি কথাও বলিনি। দলের ভিতরে বলেছি। কিন্তু নির্বাচনে ভরাডুবি হওয়ার পরে যখন দেখা গেল কোনও বিশ্লেষণের চেষ্টা নেই, উলটে “৩ থেকে ৭৭” বলে নিজেদের পিঠ চাপড়ানো হচ্ছে, তখন বলতেই হল।” তৃণমূল থেকে বিজেপিতে আশা অন্যান্য নেতাদের আক্রমণ করলেও শুভেন্দু অধিকারীর প্রশংসা করেছেন তিনি।

রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে তৃণমূল গ্রহণ করায় শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, “শুভেন্দু রাগ করিস না ভাই, অনেক কুকথা বলেছি। কবে তুই-ও ফিরে আসবি, আমার থেকেও বেশি, দলের নেতাদের কাছের হয়ে যাবি!” এর থেকেই পরিষ্কার যে দলত্যাগীদের ঘরে ফেরানোয় ক্ষোভ জমা হয়েছে তৃণমূলের অন্দরে।