শোভনের সঙ্গে শুরু নয়া ইনিংস! আগাগোড়া পাল্টে গিয়ে বৈশাখী হলেন “বৈশাখী শোভন ব্যানার্জি”

রাতারাতি নিজের ফেসবুক প্রোফাইল বদলে ফেললেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। নিজের নামের সঙ্গে যুক্ত করলেন একান্ত বন্ধু শোভন চট্টোপাধ্যায়ের নাম। একইসঙ্গে বদলে ফেলেছেন প্রোফাইল পিকচার।

শোভন এবং বৈশাখী একে অপরের দিকে হাসি মুখে তাকিয়ে রয়েছেন, এমন একটা ছবি ফেসবুকে প্রোফাইল পিকচার হিসেবে আপলোড করেছেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়।

শোভন আর বৈশাখের বন্ধুত্ব নিয়ে চর্চার শেষ নেই রাজনৈতিক মহল থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের মধ্যে। কখনো কখনো বিরোধীরা শোভন বৈশাখের বন্ধুত্ব নিয়ে তীব্র কটাক্ষ করেছেন,

আবার কখনো শোভনের স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায় শ্লেষাত্মক ভঙ্গিতে আক্রমণ করেছেন দুজনকে। যদিও এই সমস্ত আলোচনা বা সমালোচনাকে গুরুত্ব দিতে নারাজ শোভন কিংবা বৈশাখী। ভালো মন্দ সব সময় একে অপরের পাশে থেকেছেন।

আনন্দের দিনগুলি যেমন দুজনে একসাথে সেলিব্রেট করেছেন ঠিক তেমনি, দুঃখের দিন গুলিতে একে অপরকে পাশে পেয়েছেন শোভন এবং বৈশাখী। এবার জীবনের নতুন অধ্যায় শুরু করতে চলেছেন বঙ্গ রাজনীতির অতিচর্চিত জুটি শোভন বৈশাখী।

বন্ধুত্বের সম্পর্কের ঊর্ধ্বে গিয়ে নিজেদের সম্পর্ককে কি অন্য কোন নাম দিতে চলেছেন শোভন বৈশাখী? বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের প্রোফাইল পিকচার এবং নাম বদলে ফেলায় এমনটাই চর্চা শুরু হয়েছে।

ফেসবুকে নিজের নামের সাথে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের নাম যুক্ত করা নিয়ে সংবাদমাধ্যমে মুখোমুখি হয়ে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় এর অনুমতি নিয়েই ফেসবুকের নাম বদল করেছেন বৈশাখী।

বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় নামে আর আলাদা কোনও প্রোফাইল রইল না। যদিও এই সিদ্ধান্ত কেন, সে প্রসঙ্গে কিছু জানাননি বৈশাখী। বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়ের লাইভ আরো একবার সামনে এনেছিল রত্না এবং শোভনের সম্পর্কের তিক্ততা।

বেহালা পূর্বের তৃণমূল বিধায়ক রত্না চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিলেন শোভন। নারদ মামলায় গ্রেফতারের পর শোভনকে দেখতে নিজাম প্লেসে রত্না পৌঁছালেও সেই বিষয়টি ভালো চোখে নেয়নি শোভন।

রত্নাকে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত জীবনের চরম ভুল বলে উল্লেখ করেছেন শোভন। একইসঙ্গে আক্রমণ করেছেন বৈশাখী। রত্না শ্লেষের সুরে বলেছেন, “দু’জন কল-‘ঙ্কিত নায়ক-নায়িকা। ছাত্র-যুব সমাজকে কী শেখাচ্ছেন?

তাঁরা যেন আমায় শিক্ষা দিতে না আসে।” তারপর আবার শোভন-বৈশাখী একসাথে পথ চলা বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।