“৪ মাসের মধ্যেই বাংলায় জারি হবে রাষ্ট্রপতি শাসন”, দাবি সৌমিত্রর

বাঁকুড়ার রাইপুরের সভায় যোগদান করেছিলেন বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। এই সভা থেকেই রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে তাঁর দাবি,” “চারমাসের মধ্যেই রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হবে বাংলায়”।

একই সঙ্গে তৃণমূলের তোলাবাজির উপযুক্ত হিসেবে নেওয়ার নিদান দেন দলীয় কর্মী সমর্থকদের। এমনকি দুর্গাপূজা উপলক্ষে হাইকোর্টের রায় কে সম্মান জানালেন তিনি


বাঁকুড়ার রাইপুরে কৃষি আইনের সমর্থনে সোমবার রাজ্য বিজেপির পক্ষ থেকে পথসভার আয়োজন করা হয়। এ দিনের পথ সভায় উপস্থিত ছিলেন, বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ,ডা. সুভাষ সরকার, যুব মোর্চার সৌগত পাত্র ও অন্যান্যরা।

এদেন পথ সভায় উপস্থিত থেকে রাজ্যের শাসক দলকে নাম না করে কটাক্ষের তী’রে বি’দ্ধ করলেন সৌমিত্র খাঁ। তিনি বলেন,”জঙ্গল মহলকে খেপিও না। জঙ্গলের কাঠ দিয়ে এমন মারধর করা হবে, পালিয়ে যেতে হবে।”

একই সঙ্গে উঠে আসে সৌমিত্রর বি’স্ফো’রক দাবি। তিনি বলেন,”রাজ্য তৃণমূল যেভাবে অত্যা’চার চালাচ্ছে তাতে চারমাসের মধ্যে, ডিসেম্বরেই রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হবে।” দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে সৌমিত্র বলেন,”পঞ্চায়েত স্তরে যেখানে তৃণমূলের দু’র্নীতি চোখে পড়বে ঘেরাও করে তোলাবাজির হিসেব নেবেন।” বিজেপি সংসদের এই ধরনের বক্তব্য কে নিয়ে চাপানউতোর শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে।

এদিন পথসভা শেষ করে সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখোমুখি হন সৌমিত্র খাঁ। সেখানে রাজ্যের বিভিন্ন বিষয় যেমন রাজ্যের পরিস্থিতি থেকে ছত্রধর মাহাতো, ছবি উঠে এলো বিজেপি সাংসদের কথায়।

করোনা পরিস্থিতিতে দূর্গা পূজার আয়োজন নিয়ে মুখ খুললেন তিনি। বাংলা জুড়ে দুর্গাপূজা উপলক্ষে হাইকোর্টের রায় কে সম্মান জানিয়েছেন। রাজ্যবাসীকে নিজের পাড়ায় পাড়ায় পুজো দেখার আহ্বান জানিয়েছেন সৌমিত্র খাঁ।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে অনেক আগেই করোনা ম’হা’মারীর মধ্যে দুর্গাপূজা নিয়ে বেশ কিছু বিধিনিষেধ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু আদৌ কি সোশ্যাল ডিসটেন্স বজায় রাখা যাবে? ভীর এড়ানো যাবে কিভাবে? সেই নিয়ে উঠতে থাকে প্রশ্ন। পরবর্তী ক্ষেত্রে সোমবার কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে পুজো মণ্ডপ গুলি কে কনটেইনমেন্ট জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। যদিও হাইকোর্টের এই রায়ের বিরোধিতা করে আবারো আদালতের দ্বারস্থ হয়েছে ফোরাম ফর দুর্গোৎসব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here