আবারো জাঁকিয়ে পড়বে শীত! রাজ্যের এই সকল জেলায় বৃষ্টির সাথে কনকনে ঠান্ডা সম্ভাবনা

তাপমাত্রার পা’রদ নামল কলকাতায়। আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে খবর, আগামী ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টির স’ম্ভা’বনা রয়েছে রাজ্যের বেশ কয়েকটি জেলায়।

সরস্বতী পুজোর আগে থাকতেই শীত ক্রমে ক্রমে কমে যাচ্ছিল। ফেব্রুয়ারি মাসের বেশ কিছুদিন ধরে জাঁ’কিয়ে ঠান্ডা পড়লেও চলতি বছরের জন্য কন’কনে ঠা’ণ্ডা বি’দায় নিতে চলেছিল বলে মনে করেছিল হাওয়া অফিস।

আবারো প্রত্যাবর্তন করতে চাইছে শীত। বুধবার শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৯.৫। স্বাভাবিক তাপমাত্রা থেকে এই তাপমাত্রা মাত্র ১ ডিগ্রি বেশি।

বৃহস্পতিবার শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২ ডিগ্রি কমে গিয়েছে। এদিন কলকাতায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৭.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

সর্বাধিক ৯৭ শতাংশ এবং ন্যূনতম ৪৭ শতাংশ জলীয়বাষ্প ছিল বাতাসে। আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে,

হালকা বৃষ্টির স’ম্ভা’বনা রয়েছে দক্ষিণবঙ্গে পশ্চিম ও উপকূলবর্তী জেলা এবং উত্তরবঙ্গের পার্বত্য জেলাগুলিতে। দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার,

কোচবিহার ও জলপাইগুড়িতে বৃষ্টিপাতের স’ম্ভাবনা বেশি। অন্যদিকে হালকা বৃষ্টিপাতের স’ম্ভাবনা রয়েছে পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, হাওড়া, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলায়।

ফেব্রুয়ারির শুরুতেই কনকনে ঠা’ণ্ডায় কাঁ’পতে হয়েছে রাজ্যবাসীকে। বিগত ১০ বছরে এই দিনই ছিল সবচেয়ে শীতলতম ফেব্রুয়ারি।

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের অধিকর্তা গণেশ কুমার দাস জানান, “এই পরিস্থিতি বি’রল, কিন্তু আগেও এই ধরনের ঘ’টনা ঘটেছে।

এর আগে ২০০৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসেও জমিয়ে শীত উপভোগ করেছিলেন বাংলার মানুষ।” জানা গেছে, নতুন করে পশ্চিমী ঝ’ঞ্ঝা

প্রবেশ করতে চলেছে জম্মু-কাশ্মীরে। ভারতের মধ্যপ্রদেশ, ছত্রিশগড় এবং পূর্ব ভারতের ঝাড়খন্ডে বৃষ্টিপাতের স’ম্ভাবনা রয়েছে।