লতা মঙ্গেশকরের গান নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করে বসলেন ভাইরাল রানু মন্ডল, নেটদুনিয়ায় তুমুল ভাইরাল ভিডিও

কথায় আছে, ভগবান যখন দেয় ,ছাপ্পড় ফুঁড়ে দেন। কথাটির জ্বলন্ত উদাহরণ হলেন রানাঘাটের রানু মন্ডল। স্টেশনে ভিখারিদের সাথে ভবঘুরের মতো জীবন যাপন করতেন রানু, পথচলতি মানুষের কাছে গান গেয়ে ভিক্ষা চেয়ে জীবন কাটাতেন। হঠাৎই তার জীবনে আবির্ভাব হয় অতীন্দ্র চক্রবর্তীর মত দেবদূতের।

অতিন্দ্র নিজের ফোনে রানুর গাওয়া গান “এক পেয়ার কা নাগমা হে”সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে দেন। ঝড়ের মত সেই ভিডিও ভাইরাল হয়ে যায়। রানুর অপূর্ব গলা শুনে মুগ্ধ হয়ে যান গোটা ভারত বাসি। এরপরে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। ডাক এসেছে সুদূর মুম্বাই থেকে।

হিমেশ রেশমিয়া সঙ্গে ডুয়েট গান”তেরি মেরি কাহানি”হয়ে যায় সুপারহিট। অর্থ খ্যাতি যশ এর বন্যায় ভেসে যান রানু। কিন্তু মিডিয়ায় বারবারই উঠে এসেছে রানুর দুর্ব্যবহারের কথা।এর আগেও তার সঙ্গে ফটো তুলতে চাওয়ায় একটি ফ্যান কে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেন তিনি।

এছাড়াও তার ভক্তদেরনানারকম সমালোচনাও তিনি করেছেন মিডিয়ার কাছে। তার এই ব্যবহারের ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্বয়ং হিমেশ। তার ভক্তরাও তার উপর হয়ে যায় রুষ্ট। যদিও অনেকের মতে তার মানসিক অবস্থা ঠিক না থাকায় এইসব কাজ করেছেন তিনি।

লকডাউনে তার রোজগার পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। নতুন বাড়ি ছেড়ে আবার পুরনো বাড়িতেই থাকতে শুরু করেন রানু। ঠিকঠাক করে খেতেও পারেন না তিনি। তিনি তার দুঃখ কষ্টের কথা তুলে ধরেন মিডিয়ার কাছে।রানুকে ভালোবেসে “বাংলার কোকিল” বলে আখ্যা দিয়েছেন বাংলার মানুষ।

সম্প্রতি রানু মন্ডলের সাথে সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন “টুম্পা সোনা” খ্যাত কেওড়া ব্লগ। ব্লগের আরব ও অরিজিতের সঙ্গে রানুদির আলাপ-আলোচনা উঠেছিল জমে। সেই ভিডিও তারা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে হয়ে গেছিলেন আবার ভাইরাল।

আলোচনার মধ্যে উঠে গেছে রানু মন্ডল এর অনেক অজানা তথ্য। তিনি বারবার হিন্দি বলছেন কেন এই নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়। এমনকি দর্শকদের সঙ্গে তার খারাপ ব্যবহারের আসল কারণ কি সেই প্রশ্নেরও উত্তর দিয়েছেন রানু। তিনি অতীন্দ্রকে ভগবানের চাকর কেন বলেছেন তারও উত্তর দেন তিনি।

এমনকি মাঝখানের রটে গিয়েছিল সালমান খান নাকি রানু মন্ডল কে ফ্ল্যাট দিয়েছেন, সেই কথাটি একদম ভুল সেটিও জানান তিনি। কিন্তু বিতর্ক যেন তার পিছু ছাড়ে না। সম্প্রতি আবার তিনি জড়ালেন বিতর্কে এবং স্বয়ং কিংবদন্তি গায়িকা লতামঙ্গেসকার কে নিয়ে। আসলে একটি সাক্ষাৎকারে হিমেশ রেশমিয়া ও রানু মন্ডল কে একসাথে সাংবাদিকরা বিভিন্ন প্রশ্ন করছিলেন, সেই সাথে উঠে এসেছিল তাদের নতুন গানের কথা ও। সেই সম্পর্কেই রানু মন্ডল কে লতামঙ্গেসকার কে নিয়ে প্রশ্ন করা হলে রানু মন্ডল বলেন,

কিংবদন্তি গায়িকার লতামঙ্গেসকার জি নিজেও বাংলা জানতেন না, তাকেও কেউ-না-কেউ শিখিয়েছে লতামঙ্গেসকার জিকে, তাকে বাংলা শিখিয়েছেন কিংবদন্তি গায়ক হেমন্ত নিজে সুতরাং লতা মঙ্গেশকরজিকেও কোথাও না কোথাও শিখতে হয়েছে।

এতেই শুরু হয়ে যায় বিতর্ক আবার রানু মন্ডল বলেন লতামঙ্গেসকার জিজা পেয়েছেন তার জন্য তাকে কোথাও শিখতে হয়েছে, তিনি তার থেকে অনেক ছোট এবং জুনিয়র তাই তিনি তার গলা কে ফলো করেন। এই প্রসঙ্গে তিনি গায়িকা লতা মঙ্গেশকরের,

“হিরো” সিনেমার একটি গান দু’লাইন গেয়ে শুনিয়ে দেন দর্শকদের, এমনকি তাকে লতা মঙ্গেশকরের সঙ্গে দেখা করানো হলে কী করবেন তিনি সেই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি মুচকি হেসে প্রশ্নটি এড়িয়ে যান এবং বলেন হিমেশ রেশমিয়া ছাড়া তিনি কাউকেই তার মত বলতে পারবেন না,

কারণ হিমেশ রেশমিয়া তাকে সুযোগ দিয়েছেন। যদিও পুরো সাক্ষাৎকারটি ভালোভাবে সামলেছেন হিমেশ রেশমিয়া নিজে, তিনি বলেন লতা মঙ্গেশকর জি বলিউডের প্রাণ তাকে ছাড়া সঙ্গীতজগত অসম্পূর্ণ, সেই সঙ্গে তিনি লতা মঙ্গেশকর জির 90 তম জন্মদিনে শ্রদ্ধা জানান।

সবমিলিয়ে রানু মন্ডল এর কথায় আবার তৈরি হয়েছে বিতর্ক। ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় হয়ে যায় ভাইরাল একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে। রানু মন্ডল এর গলায় এই ধরনের কথা শুনে ক্ষোভে ফেটে পড়েন দর্শকরা অনেকেই বলেন রানু মন্ডল নিজেকে লতা মঙ্গেশকরের সঙ্গে তুলনা করেন কোন সাহসে?

অনেকেই রানু মন্ডল এর তীব্র নিন্দা করেন যদিও অনেকে বলেছেন রানু মন্ডল মানসিকভাবে অপ্রকৃতিস্থ, তাই তিনি কোথায় কি বলতে হয় নিজেও জানেন না। সবমিলিয়ে হিমেশ রেশমিয়া পুরো ব্যাপারটি সামলানোর চেষ্টা করলেও বিতর্ক বেড়ে গেছে তুঙ্গে।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত রানু মন্ডল এর ভবিষ্যৎ কি হবে সেই নিয়ে রয়ে গেছে আশঙ্কা। শেষ পর্যন্ত কি অতীতের গর্ভে হারিয়ে যাবেন তিনি? নাকি আবার নতুন উদ্যমে কাজ শুরু করবেন তিনি? যতই ট্রল হোন না কেন, রানু মন্ডলকে ভালো বাসেন সবাই। কিন্তু তার জীবনে উন্নতি করেন এটাই আমাদের প্রার্থনা।