‘মোদি সরকারের ওপর বিশ্বাস নেই কৃষকদের’, মোদির নতুন কৃষি বিল নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে খোঁচা রাহুলের

সোনিয়া গান্ধীর ট্রিটমেন্টের জন্য বিদেশ যাত্রা করতে হয়েছিল রাহুল গান্ধীকে। সেই কারণে লোকসভার বাদল অধিবেশন এ যোগদান করা তার পক্ষে সম্ভব হয়নি। কিন্তু তাতে কি? দেশের বাইরে থেকেও, অধিবেশনে না থেকেও, প্রধানমন্ত্রীর প্রতিটি পদক্ষেপের বি’রুদ্ধে তীব্র আ’ক্র’মণ শানিয়ে চলেছেন রাহুল গান্ধী।

হা’তি’য়া’র হিসেবে বেছে নিয়েছেন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম কে। টুইটারে এক টুইট বার্তায় রাহুল গান্ধী বলেন, মোদি সরকারের উপর বিশ্বাস হারিয়েছে কৃষক।

এদিনের টুইটে রাহুলের দাবি, প্রথম দিক থেকে বিজেপি সরকারের প্রতিশ্রুতি এবং কার্যকলাপের মধ্যে বহু ব্যবধান লক্ষ্য করা যাচ্ছে। নোট বাতিল, জিএসটি সহ ডিজেলের মোটা অংকের করের কথা উল্লেখ করে রাহুল গান্ধী বলেন, ঠিক এই কারণে কৃষকরা সরকারের প্রতি ভরসা হারিয়েছে।

এদিন তিনি আরো বলেন, কৃষকরা জানান যে মোদি সরকারের মিত্রদের ব্যবসার উন্নতি ঘটবে। একইসঙ্গে কৃষকদের লাভের পথে বাধা হয়ে দাঁড়াবে। অন্যদিকে লোকসভায় কৃষি ক্ষেত্রে প্রযোজ্য যে তিনটি বিল প্রধানমন্ত্রী এনেছেন, সে সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী যথেষ্ট আশা প্রকাশ করেছেন।

তার মতে, এই তিন টি বিল কৃষিক্ষেত্রে বিপ্লব আনবে। কৃষকরা নিজেদের জমির ফসল যেকোনো জায়গায় ভালো দামে বিক্রি করতে পারবেন। বিরোধীরা চেষ্টা করছে সাধারণ মানুষকে ভুল বুঝিয়ে বিক্ষোভের পথে নামাতে। বৃহস্পতিবার লোকসভায় প্রথম দুটি কৃষি বিল সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট পেয়ে পাশ হয়ে গিয়েছে। তৃতীয় বিলটি নিম্নকক্ষে ছাড়পত্র পেয়েছিল।

গেরুয়া শিবিরের এক জোটসঙ্গী পাঞ্জাবের শিরোমনি অকালি দল এন ডি এ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। হরসিমরত কৌর বাদল কৃষি বিলের যথার্থতা সম্পর্কে একমত না হওয়ায় পদত্যাগ করেছেন। হরিয়ানা এবং পাঞ্জাবে চলছে কৃষক আন্দোলন।