লতা মঙ্গেশকরকে প্রণাম করে তারই গান গেয়ে তাক লাগাল পবন্দীপ, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

মানুষ যেন ট্রেন্ডিং-এর জোয়ারে ভাসছে। আশেপাশে যাইই দেখিনা কেন, সবটাই এখন ট্রেন্ডিং। চুন থেকে পান খসলেই যেকোন কিছু হয়ে যায় ভাইরাল। করোনা মরসুম দেশ থেকে এখনও বিদায় হয়নি। তার আগেই জনকূলের মাথায় আরও একটি ভাইরাসের ছাওনি পড়েছে! তবে ওমি”ক্রনের প্রভাব এখন দেশে পড়েই গেছে।

লতা মঙ্গেশকর ছিলেন ভারতের একজন স্বনামধন্য গায়িকা। তিনি এক হাজারেরও বেশি ভারতীয় ছবিতে গান করেছেন এবং তার গাওয়া মোট গানের সংখ্যা দশ হাজারেরও বেশি। এছাড়া ভারতের ৩৬টি আঞ্চলিক ভাষাতে ও বিদেশি ভাষায় গান গাওয়ার একমাত্র রেকর্ডটি তারই। তিনি ২০২২ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি মুম্বাইয়ে ৯২ বছর বয়সে মৃ”ত্যু”বরণ করেন।

১৯৮৯ সালে ভারত সরকার তাকে দাদাসাহেব ফালকে পুরস্কারে ভূষিত করে। তার অবদানের জন্য ২০০১ সালে তাকে ভারতের সর্বোচ্চ সম্মাননা ভারতরত্নে ভূষিত করা হয়; এম. এস. সুব্বুলক্ষ্মীর পর এই পদক পাওয়া তিনিই দ্বিতীয় সঙ্গীতশিল্পী। ২০০৭ সালে ফ্রান্স সরকার তাকে ফ্রান্সের সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মাননা লেজিওঁ দনরের অফিসার খেতাবে ভূষিত করে।

এমনকী আরো পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে লতাজিকে। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে যেখানে দেখতে পাওয়া গেছে সনি টিভি পরিচালিত ইন্ডিয়ান আইডল মঞ্চে লতা মঙ্গেশকরের সঙ্গে গান করছে পবনদ্বীপ রাজন এবং অরুনিতা কাঞ্জিলাল।

আসলে অরুনিতা এবং পবনদ্বীপের ভক্তদের প্রতিদিনই নানান রকমের ইচ্ছা থাকে। আর এই ভিডিওর মাধ্যমে ভক্তরাও তাদের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। সকলেই বলেছেন ইন্ডিয়ান আইডলের মঞ্চে একদিন লতাজিকে আনা হোক। লতাজির সাথে দাঁড়িয়ে অরুণীতা এবং পবনদ্বীপের একটি গানের ভিডিও নিশ্চয়ই হওয়া উচিত।

কিন্তু দুঃখের বিষয় হল শ্রদ্ধেয় লতাজি আর আমাদের মাঝে নেই। তাই ভক্তদের এই ইচ্ছা হয় তো অসম্পূর্ণই রয়ে গেল এই জীবনে তে। যদিও বা এই ভিডিও ভাইরাল হয়েছে ছয় মাস আগে ইউটিউব এর The Great Videos নামের চ্যানেল থেকে। আর তখনই মন্তব্য প্রকাশ করেছেন ভক্তরা তাদের এই ইচ্ছা।

ভিডিওটির ভিউজ হয়েছে ১.৪ লক্ষ্য এবং ভিডিওটি কে লাইক করেছে ১০ হাজার মানুষে। তুমুল গতিতে ভাইরাল হয়েছে এই ভিডিও। ভিডিওর শুরুতেই দেখা গেছে দুর্দান্তভাবে গান গাইছেন পবনদ্বীপ আর তার সাথে সুরে সুর মেলাচ্ছে সকলের প্রিয় অরুনিতা। এইদিন মঞ্চে আশা ভোঁসলে এবং লতাজিরকে সম্মান জানিয়ে ছিল ইন্ডিয়ান আইডলের একটি বিশেষ পর্ব।

আর তাই জন্য সেদিন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন আশা ভোঁসলে। ‘ইয়ে রাতে ইয়ে মোসম’ আশা ভোঁসলে এবং কিশোর কুমারের গাওয়া এই গান সেইদিন পবনদ্বীপ এবং অরুনিতা মিলে সকলকে গেয়ে শুনিয়েছে এবং তাদের মন কেড়ে নিয়েছে। তাদের গান শুনে আশা ভোঁসলে নিজেই মুগ্ধতায় ভেসে পরেছেন।

আর বিচারকের স্থানে বসে থাকা হিমেশ রেশমিয়া, সনু কাক্কার ,আনু মালিকের মতন গায়ক-গায়িকারাও মেতে উঠেছেন অরুদ্বীপের গানে। অরুনিতা এবং পবনদ্বীপ তাদের গান দিয়ে গোটা মন্ত্র একাই  কাঁপিয়ে তুলেছিলেন সেদিন। অরুনিতা বেশিরভাগ সময়ে লতা মঙ্গেশকরের গান গেয়ে আসে। লতাজি কে নিজের গুরু মনে করেন অরুনিতা।

ইন্ডিয়ান আইডলের  মঞ্চে যে একঝাঁক প্রতিভাবান তরুণ তরুণীর দেখা মিলেছিল তার মধ্যে অন্যতম বাংলার মেয়ে অরুনিতা আর হিমাচলের ছেলে পবনদ্বীপ রাজন। গতবছর ১৫ ই আগস্ট শেষ হয়েছে ইন্ডিয়ান আইডল। তারপর থেকে তাদের একসঙ্গে দেখা গেছে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। এমনকি অনেক গানের অ্যালবামও বের করে ফেলেছে এই জুটি একসঙ্গে।

আবার শুধু যে তাঁদের ভারতে ভক্ত রয়েছে তা নয় বিদেশেও বেশ কয়েক হাজার ভক্ত অরুনিতা পবনদ্বীপের। ইন্ডিয়ান আইডলের পুরো সিজনে সবথেকে বেশিবার দর্শকদের সর্বাধিক ভোট যিনি পেয়েছেন তিনি বনগাঁর মেয়ে অরুণিতা কাঞ্জিলাল। তবে শুধু পাবলিক ভোট  নয়, বিচারকদেরও প্রিয় অরুণিতা।

তাঁদের মতে প্লেব্যাক গাওয়ার জন্য একেবারে তৈরি অরুণিতা।ইন্ডিয়ান আইডল সিজন টুয়েলভে প্রথম থেকে সকলের অন্যতম ফেভারিট উত্তরাখন্ডের ছেলে পবনদীপ রাজন। তাঁর সুরে যে পাহাড়ি স্নিগ্ধতা রয়েছে তা সহজেই মন জয় করে নিয়েছে বিচারকদের।