অসাধারণ বাড়ির ছাদে দুর্দান্ত অঙ্গভঙ্গিতে অসাধারণ নাচ ‘পান্তা ভাতের কুন্ডু’ দীপান্বিতার, ভাইরাল ভিডিও

বর্তমান প্রজন্মের জন্য একটা গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হল সোশ্যাল মিডিয়া। এটা এমন একটা প্লাটফর্ম যেখানে মানুষ খুব সহজেই নিজেদের প্রতিভাকে,

তুলে ধরতে পারে। নাচ, গান, কবিতা, আঁকা, সবকিছুরই কদর দেয় নেট দুনিয়ার মানুষ। আর এই প্লাটফর্মের ভালোরকম ফায়দা ওখান সেলিব্রেটিরাও।

দিনকয়েক আগেই ট্রেন্ডিংয়ে ছিল ‘জালিমা কোকাকোলা পিলা দে’ গানটি। নোরা ফাতেহির অসাধারণ নৃত্য পরিবেশনায় দারুন জনপ্রিয়তা,

কুড়িয়েছিল গানটি। আর তারপর থেকেই ট্রেন্ডিংয়ে চলে এসেছে গানটি। বহু রমণী এই গানে কোমর দুলিয়েছেন। আর এখন এই জনপ্রিয় গানের সাথে অসাধারণ নাচলেন পান্তা ভাতের কুন্ডু ওরফে দীপান্বিতা কুন্ডু। একসময় বাংলায় অনুষ্ঠিত নাচের প্রতিযোগিতা ডান্স বাংলা ডান্সের অসাধারন নাচ দেখিয়েছিলেন। দীপান্বিতা মহাগুরু মিঠুন চক্রবর্তীর খুব পছন্দের তালিকায় একজন ছিলেন তিনি। তার অসাধারণ নৃত্য শৈলী মানুষকে যাকে বলে পাগল করে তুলেছিলো। ছোট মেয়ে দীপান্বিতা কুন্ডু এখন অনেক বড় হয়ে গেছে। যাকে বলে একেবারে সুন্দরী যুবতী। কয়েকদিন আগে মানে দুমাস আগে সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ার ইউটিউবে তার একটি চ্যানেল আছে। দীপান্বিতা কুন্ডু সেখানেই জালিমা কোকাকোলা এই গানের সঙ্গে অসাধারণ নাচ পরিবেশন করেছেন। দীপান্বিতা ডান্স বাংলা ডান্সের পরে এইভাবে সোশ্যাল মিডিয়ার,

মাধ্যমে মানুষের মনের মণিকোঠায় রেখে গেছেন। তখন সেই ছোট্ট দীপান্বিতাকে এখনো মানুষ মনে রেখেছেন এইভাবে ইউটিউব এর পর্দায়। তাঁর পরনে আকাশী বর্ণের ঘাগরা, জমকালো মেক-আপ সঙ্গে তাঁর অসাধারণ নাচ সবটাই যেন তাঁর পারফরম্যান্সকে আরও সুন্দর করে তুলেছে। সেদিনের গোলগাল মিষ্টি মেয়েটা আজ কিশোরী। তবে এক্সপ্রেশন তাঁর সেই ছোটবেলার মতই তুখোড়। তখন থেকেই এক্সপ্রেশন রানী দীপান্বিতা। আজও দর্শক মনে রেখেছে বহরমপুরের দিপুকে। দীপান্বিতার একটি আইকনিক গান ছিল ” বাংলা আমার সর্ষে ইলিশ” এই গানেই সাড়া ফেলে দিয়েছিল দীপান্বিতা। তবে এখন তিনি যুবতী, তাঁর নৃত্যেও আরও রসালো প্রকৃতির হয়ে উঠছে দিনের পর দিন। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে সাধারণ মানুষ মানুষের মধ্যে থেকে যায় ইউটিউব অথবা ফেসবুক অথবা ইন্সটাগ্রাম এর মাধ্যমে আপনিও আপনার প্রতিভাকে পৌঁছে দিতে পারেন সকলের কাছে। আর আপনার মধ্যে যদি সত্যি প্রতিভা থাকে, তাহলে সাধারন মানুষ আপনাকে লুফে নেবে সোশ্যাল মিডিয়া।