“আমাকেও ক’টূক্তি করতে ছাড়ে না বিজেপি”, অভিযোগ নুসরতের

বৃহস্পতিবার দাসপুরের ভূতা হাটতলা ময়দানে দাসপুরের তৃণমূল প্রার্থী মমতা ভুঁইয়ার সমর্থনে প্রচারে এসেছিলেন অভিনেত্রী তথা সাংসদ নুসরত জাহান। এদিনের সভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে রাজ্যে তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী করার আহ্বান জানান নুসরত।

সভামঞ্চ থেকে থেকে প্রশ্ন ছু’ড়ে দেন, “যে মুখ্যমন্ত্রীর আমলে না’রীরা সবচেয়ে বেশি সু-র-ক্ষি-ত সেই মহি’লাকে তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী করবেন না আপনারা?” দর্শক আসন থেকে সদর্থক ধ্ব’নি উ’চ্চারিত হয়।

নারী সু’-র’ক্ষা প্রসঙ্গে এদিনের জনসভায় নুসরত বলেন, “গত ১০ বছরে আমাদের রাজ্যে দিদির মুখ্যমন্ত্রীত্বে না’রীরা সবচেয়ে বেশি সু-র-ক্ষি’ত। যা বিজেপি শা’সি’ত রাজ্যে ক’ল্প’নার বাইরে। বিজেপি শা’সি’ত রাজ্যগুলিতে মহিলারা মোটেই সু’র-‘ক্ষি’ত নয়। তার প্রমাণ আপনারা পেয়েছেন উত্তরপ্রদেশের হাথরসে”।

এরপরেই মুখ্যমন্ত্রীর ম-স্তি-‘ষ্ক-প্র-সূত “কন্যাশ্রী”, “রুপশ্রী” “সবুজ সাথী” প্রকল্পের কথা উল্লেখ করে নুসরত বলেন, “না’-রী’দের জন্য এমন প্রকল্প দেশের অন্য কোনও রাজ্যে নেই। এর ফলে আমাদের রাজ্যে মেয়েদের কম বয়সে বিয়ের প্রবণতা অনেক কমেছে।

বিজেপি নেতাদের মুখে না’রী সু’র-‘ক্ষা’র কথা মানায় না। ওরা মহিলাদের স-‘ম্মান দিতে জানে না। ওঁদের কথায় মোটেই বি’শ্বাস করবেন না। ওরা মহিলাদের ক’টূ’-ক্তি করে। এমনকী আমাকেও বা’দ দেয় না।”

এদিন নুসরতের হেলিকপ্টার বেলা সাড়ে ১২টা নাগাদ দাসপুরের ফরিদপুর মাঠে নামে। এরপর সড়কপথে গ্রামে যান সাংসদ। ব্লক তৃণমূল যুব সভাপতি সৌমিত্র সিংহরায়ের বাড়িতে মধ্যাহ্নভোজন করেন তিনি।

এই গ্রাম সাধারণত সংখ্যালঘু অধ্যুষিত গ্রাম। অভির দিকে দেখতে এদিন প্রচুর জ’নস’মাগম হয়। একই ম’ঞ্চে উপস্থিত ছিলেন, মমতা ভুঁইয়া, তৃণমূল নেতা সুনীল ভৌমিক, অরুণ মুখোপাধ্যায়রা।