অঙ্ক এবং পদার্থবিদ্যা জরুরী নয় ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে, নতুন নির্দেশিকা নিয়ে শুরু বিত’র্ক

ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে গেলে বা’ধ্যতামূলক হিসেবে পদার্থবিদ্যা কিংবা গণিত, কোনোটাই আর থাকছে না। ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের স্না’তক স্তরে ভরতির জন্য উচ্চমাধ্যমিকে বিষয় হিসাবে অঙ্ক এবং পদা’র্থবিদ্যা থাকা বাধ্য’তামূলক নয়।

ঠিক এরকমটাই জানানো হয়েছে অল ইন্ডিয়া কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়ার সাম্প্রতিককালে প্রকাশিত হ্যান্ডবুকে। একই নিয়’ম কার্যকারী করা হয়েছে, বিই বা বিটেক-এর ক্ষেত্রেও।

জানা গিয়েছে যে, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন, অঙ্ক, জী’ববি’দ্যা, কম্পিউটার সায়েন্স, ইলেকট্রনিকস, আ’ইটি, ইন’ফর’মেশন প্র‌্যাকটিস, বায়ো’টেকনোলজি, টেকনিক্যাল ভোকেশনাল, এগ্রিকালচার, বিজনেস স্টাডিজ, ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রা’ফিক্স এবং এন্ট্রাপ্রে’নিওরশিপের মধ্যে উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের যে কোন তিনটি সাবজেক্ট বেছে নিতে পারবেন ছাত্রছাত্রীরা।

এমনকি উচ্চ মাধ্যমিকে ৪৫ শতাংশ নম্বর পেলেই অসং’রক্ষিত শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীরা ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ পাবে। অন্যদিকে সংর’ক্ষিত শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে গেলে পেতে হবে ৪০ শতাংশ নম্বর।

এছাড়াও, পদার্থবিদ্যা, অঙ্ক এবং ইঞ্জিনিয়ারিং ড্রয়িংয়ের ব্রিজ কো’র্স ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ গুলিতে থাকা বাধ্য’তামূ’লক। এআইসিটিই-র নতুন এই নির্দে’শিকা নিয়ে ইতিমধ্যেই বি’ত’র্ক সৃষ্টি হয়েছে।

প্রশ্ন উঠছে, অংক এবং পদা’র্থবি’দ্যা ছাড়া কিভাবে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়া সম্ভব? এআইসিটিই-র চেয়ার’ম্যা’ন বি’ত’র্ক প্রসঙ্গে বলেছেন, শুধু ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ক্ষেত্রে বিষয় পছ’ন্দ করার সুযোগ বৃদ্ধি করা হয়েছে। বিভিন্ন বিভাগের জন্য কোনও বিষয় বাধ্য’তা’মূলক হতে পারে।

২০২১ সালের আগামী ১ আগস্ট মে’ডি’ক্যা’লে ভ’র্তির “নিট” পরীক্ষা। কেন্দ্রীয় শিক্ষাম’ন্ত্রকের ন্যাশনাল টেস্টিং এজে’ন্সির পক্ষ থেকে শুক্রবার জানানো হয়েছে, মোট ১১ টি ভা’ষায় পরীক্ষা নেওয়া হবে।

এমবিবিএস কোর্সে ভর্তির জন্য এইমস এবং জিপমারে গত বছর থেকেই ছাত্র-ছাত্রীদের বাছাই করে নিচ্ছে “নিট” পরীক্ষার মাধ্যমে। পরীক্ষা সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য রয়েছে, এনটিএ-র নিট সংক্রান্ত ওয়েবসাইট ntaneet.nic.in-এ।

শিক্ষামন্ত্রক জানিয়েছে, পরীক্ষায় বসার বয়সসীমা, পাঠ্যসূচি, সংরক্ষণের সুবিধা, আসনের শ্রেণীবিভাগ, পরীক্ষার ফি, দেশের কোন কোন শহরে পরীক্ষাকেন্দ্র হবে ইত্যাদি সব তথ্য ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।