“সর্বভারতীয় জয়েন্টের প্রশ্নপত্রে গুজরাটি ঠাঁই পেলে বাংলা নয় কেন?”,কেন্দ্রকে প্রশ্ন মমতার

ডাক্তার ইঞ্জিনিয়ারিং সহ সর্বভারতীয় পরীক্ষাগুলির ক্ষেত্রে প্রশ্নপত্র বাংলা ভাষা হওয়ার পক্ষে যুক্তি দেখালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই বছরে রাজ্যের মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, মাদ্রাসা, হাই মাদ্রাসা পরীক্ষার কৃতীদের সংবর্ধনা দিতে গিয়ে নবান্নে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ উগরে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন,”কেন্দ্রকে চিঠি লিখেছি। বলেছি যে গুজরাটি ভাষায় প্রশ্ন থাকলে বাংলা কেন থাকবে না?”

এদিন নবান্ন থেকে কেন্দ্রীয় সরকার অনুমোদিত নয়া জাতীয় শিক্ষানীতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে তোপ দাগলেন তিনি। এই নীতি অনুযায়ী বোর্ড পরীক্ষায় কোন মেধা তালিকা না থাকার কারণে ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিনি বলেন,”মেধাতালিকা না থাকলে, কেউ নিজেদের ফলাফল নিয়ে গর্ববোধ করবে কীভাবে? এসব রেজাল্ট তো ছাত্রছাত্রীদের জীবনের সম্পদ। আমার মনে হয়, যে যেভাবেই পাশ করুক, একটা মেধাতালিকা দরকার।”

ক’রোনা পরিস্থিতির কারণে এদিন রাজ্যের বোর্ড পরীক্ষার কৃতীদের জন্য নবান্নের সভা কক্ষে ভার্চুয়ালি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেই নিয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে রাজ্য শিক্ষা ব্যবস্থা স্কলারশিপের বিষয়ে একাধিক তথ্য তুলে ধরেন তিনি।

নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর নামানুসারে নেতাজি সুভাষ মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থাকলেও তাঁর বিখ্যাত স্লোগান “জয় হিন্দ” নামেও বিশ্ববিদ্যালয় তৈরির পরিকল্পনা রয়েছে। এছাড়াও বি আর আম্বেদকরের নামে একটি বিশ্ববিদ্যালয় তৈরীর পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

ক’রোনা পরিস্থিতির কারণে কোন ছাত্র-ছাত্রী কলেজে ভর্তি হতে যাতে অসুবিধা না হয় এবং আর্থিক কারণে কারো পড়াশোনা চালিয়ে যেতে সমস্যা যেনো না হয়,তার জন্য সভায় উপস্থিত মন্ত্রীদের উদ্দেশ্যে কড়া নির্দেশ দেন তিনি। যদি কোনো পরীক্ষার্থী বই কিনতে না পারে তাকে সাহায্যের কথাও বলেন তিনি।

মুখ্যমন্ত্রীর মতে,ছাত্র ছাত্রীরাই দেশের ভবিষ্যৎ।বাংলার পড়ুয়ারা মেধার দিক থেকে সবচেয়ে এগিয়ে। তাই মেধাবীদের যাতে সমস্যা না হয় তার দিকে লক্ষ্য রাখার কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী। ছাত্র ছাত্রীদের সঙ্গে বাক্যালাপ করেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে সবটাই ভার্চুয়ালি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here