“মমতাকে চায় গোয়া”, বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে জানালেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী

গোয়ার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লুইজিনহো ফালেরিও বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দিলেন। গোয়ার বিধানসভায় গিয়ে সোমবার স্পিকারের কাছে তাঁর পদত্যাগপত্র জমা দেন লুইজিনহো ফালেরিও।

বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার পরেই বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলেন। তাঁর কথায়, “মমতাকে চাইছে গোয়া।” এই কথা থেকেই তাঁর দলবদলের ইঙ্গিত পাওয়া গেল বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

লুইজিনহো ফালেরিও আরও বলেন, “ন্যাভেলিন অঞ্চলের মানুষকে অনেক ধন্যবাদ। তাঁরা আমার উপর ভরসা রেখেছিলেন।আগামীদিনেও আমি তাঁদের জন্য কাজ করব।” দল বদলের জল্পনা উস্কে দিয়ে তিনি আরো বলেন, “মমতা হলেন মহিলা উন্নয়নের কাণ্ডারী।

তিনি স্ট্রিটফাইটার। গোয়াতে তাঁকে প্রয়োজন। মমতা একাধিক বিরোধী শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করছেন। বিজেপিকে ডিরেক্ট চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছেন তিনি। মমতাকে অনুরোধ জানাবো, গোয়ায় এসে তিনি দায়িত্ব নিন।”

নিজের প্রসঙ্গে গোয়ার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর জানান, “আমি প্রবীন হলেও এখনও শরীরে বইছে তাজা রক্ত”। তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সারা দেশজুড়ে বিজেপি শাসিত রাজ্য গুলি থেকে বিজেপিকে উৎখাত করার ডাক দিয়েছেন।

দেশজুড়ে জোড়া ফুলের বিস্তার ঘটানোর আহ্বান শোনা গিয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখেও। ২০২৪-এ রাজধানী দখলের ব্লু প্রিন্ট তৈরি করছে তৃণমূল। বাংলার সীমানা পেরিয়ে কখনো ত্রিপুরা আবার কখনও অসমকে টার্গেট রেখেছে তারা।

ঘাসফুল শিবিরের এবার লক্ষ্য গোয়া। সেই পরিকল্পনারই একটি অংশ হিসেবে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে লুইজিনহো ফালেরিওর। প্রবীন রাজনীতিবিদ লুইজিনহো ফালেরিও দীর্ঘদিন ধরে কংগ্রেসের সঙ্গে যুক্ত। গোয়ার নাভেলিম কেন্দ্র থেকে সাত বার জিতে বিধায়ক হয়েছেন তিনি।

গোয়ার দুবারের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন তিনি। ভারতের উত্তর-পূর্বের সাত রাজ্যে কংগ্রেসের সাংগঠনিক দায়িত্ত্ব ছিল তাঁর। কংগ্রেস নেতার দলবদলের গুঞ্জনে হইচই শুরু হয়েছে গোয়ায়। তবে কি ফালেরিওর নেতৃত্বেই গোয়া থেকে বিজেপি বিরোধী কর্মসূচি শুরু হবে গোয়ায়? উঠছে প্রশ্ন।