মেয়েদের পোশাক সংক্রান্ত মন্তব্যে ফের একবার বিতর্কে সম্মুখীন হলেন তৃণমূল প্রার্থী চিরঞ্জিত চক্রবর্তী

মেয়েদের ছেঁ-‘ড়া জিনস পরা নিয়ে উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী তীরথ সিং রাওয়াতের মন্তব্যে দেশজুড়ে তরজা শুরু হয়েছে৷ ওই মন্তব্যের নি”ন্দা করে গ”র্জে ওঠে নেটিজেনরা৷

এরপরই ‘হ্যাশট্যাগ রি’প’ড জিনস’ লিখে একের পর এক পো’স্ট হতে শুরু করে সোশাল মিডিয়ায়। চাপে পরে অবশেষে আজ ক্ষ”মা চান মুখ্যমন্ত্রী তীরথ সিং রাওয়াতে।

এই রেশ কাটতে না কাটতে ফের বিতর্ক। সেই ঘটনার পুনঃ নির্মাণ হয় বাংলাতেও। ২০২১ সালের প্র’চারে বেরিয়ে ফের ২০১১ সালের বিত’র্ক উ’স্কে দিলেন তৃণমূল প্রার্থী চিরঞ্জিত চক্রবর্তী।

বারাসতে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘মহিলাদের পো’শা’ক সম্পর্কে তাঁর ২০১১ সালের মন্তব্যেই অনড় তিনি।’ তাঁর কথায়, ‘ডিস্কোতে যাওয়ার পো’শাক আর ভিড় ট্রেনে ওঠার পো’শাক এক নয়।

আবার শ্রা’দ্ধ বাড়িতে যাওয়ার পোশাক আলাদা। মহিলাদের পো’শাক সম্পর্কে সচেতন হওয়া উচিত। ‘মহিলাদের ড্রে’স কোডের নিদান দিয়ে ফের বি’ত’র্কে জড়ালেন অভিনতা প্রার্থী।

এখানেই শেষ নয়, পুরনো বক্তব্যের রেশ ধরেই এদিন চিরঞ্জিত বলেন, ‘না-‘রী নি’-র্যা-‘ত-নের একটা বড় কারন তাদের পোশাক।’ বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই রাজনৈতিক মহলে জ’ল্পনা শুরু হয়েছে। বাম জোটের বারাসাত কেন্দ্রের প্রার্থী সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায় মহি’লাদের সম্পর্কে চিরঞ্জিতের এহেন মনোভাব নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিয়েছেন।

অভিনেতার মন্তব্যে তীব্র বিত’র্ক তৈরি হয়েছে। ক’টা’ক্ষ শুরু করেছেন নেটিজেনরাও। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাংলায় মহিলারা অত্যন্ত সু”র’-ক্ষিত। এমনটাই মন্তব্য চিরিঞ্জিতের।

গত কয়েকদিন আগে বে’ফাঁ’স মন্তব্য করেছিলেন অভিনেতা চিরঞ্জিত। অভিনেতাদের বিজেপিতে যোগ প্রসঙ্গে বারাসত থেকেই তিনি বলেছিলেন, “আমাদের বাংলা ছবির অবস্থাটা খুব খা’রা’প। কোনও ছবি নেই। হাউস ব’ন্ধ হয়ে গিয়েছে সব।

শু’-টিং হচ্ছে না। তারপর এতদিন ধরে করোনার জন্য কাজ নেই। ফাংশনগুলো নেই। সেই জন্য একটুখানি সাফার করছে ইন্ডা’স্ট্রিটা। তাই সেক্ষেত্রে বিকল্প কোনও একটা জায়গা চাইছে তাঁরা।

সেক্ষেত্রে যাঁরা ভাবছেন বাংলায় কিছু হবে না, তাঁরা বিজেপিতে চলে যাচ্ছেন। ওখান থেকেই ট্র্যাকটা পাবে মনে করছেন।” তাঁর এই মন্তব্যে জোর স’মা’লো’চনা তৈরি হয়েছিল। সেই রেশ কাটতে না কাটতেই ফের মহি’লাদের নিয়ে বিত’র্কি’ত মন্তব্য।