অসাধারণ গান গেয়ে সাফল্যের দোরগোড়ায় বাঙালি গৃহবধূ, শুভেচ্ছার ঝড় নেটদুনিয়ায়

ভাইরাল হওয়া বিপাসা দি এবার পৌঁছে গেলেন রেকর্ডিং এর জন্য স্টুডিওতে, প্র’শং’সায় পঞ্চমুখ কুমার শানু পেশায় চা বিক্রেতা লকডাউন এর জন্য বাড়িতে প্রতিদিন খাবার ও ঠিক করে জোটে না, এরমধ্যে গান গাওয়া তো বিলা’সিতা।

দা’রিদ্রতার জন্য মেয়ের ইচ্ছে থাকলেও গান শেখাতে পারেনি বাবা। কিন্তু প্রতিভা কখনো চাপা থাকেনা, কথায় আছে না, ইচ্ছে থাকলেই উপায় হয়, আজ এই অস’ম্ভবকে সম্ভব করে দেখালেন চাকদহের বিপাশা দাস।

কদিন আগেই ভাইরাল হয়েছিল তার গানের একটি ভিডিও, খালি গলায় অদ্ভুত সুন্দর ক’ণ্ঠস্বরে মুগ্ধ হয়ে যান নেটিজেনরা। “এ মেরে বতন কে লোগো”, “কি লিখি তোমায় প্রিয়তম”, “দিল টুটে” নানা কিং’বদন্তি গানে মাতিয়ে দিয়েছেন সোশ্যাল মিডিয়া।

ঝড়ের বেগে ভিডিও ভাইরাল হতে শুরু করে। কমেন্ট বক্সে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দনে ভরে যায়। প্রায় লাখের বেশি মানুষ দেখে ফেলেছেন তার ভিডিওটি, শেয়ার করেছেন হাজারের বেশি। এই ভাবেই প্রতিটি ঘরে ঘরে পৌঁছে যান বিপাশা দাস।

শুরু হয় বিপাশা দাসের এক নতুন সফর। “ইন্ডিয়ান মিক্সড ভিডিওস” নামে একটি সংস্থা তার পাশে দাঁড়ায়। কুমার শানুর সঙ্গে তিনি পান গান করার সুযোগ। বর্তমানে বিপাশা দি স্টুডিওতে গানটির রেকর্ডিং করেছেন।

এই প্রসঙ্গে কুমার শানু তার গানের ভূয়সী প্রশং’সা করেছেন, তিনি এও বলেছেন কোনো প্রশিক্ষণ ছাড়াই এধরনের প্রতিভা সত্যিই বিরল। এ ধরনের প্রতিভাকে সকলের সামনে আনার জন্য সোশ্যাল মিডিয়াকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।

সবার ভালবাসায় বিপাশা দি আজ পৌঁছে গেছে বিশ্ব দরবার এর মঞ্চে। কিন্তু বিপাশা দির মত আরো অনেক প্রতিভায় রয়েছেন যারা আজও সুযোগের অপেক্ষায়।

ইন্ডিয়ান মিক্সড ভিডিও সেই ভাবেই অনেক নতুন নতুন প্রতিভার খোঁজে রয়েছে, তাদের কুর্নিশ জানাই এরকম একটি সুন্দর প্রচেষ্টার জন্য। প্রসঙ্গত কিছুদিন আগেই বিপাশা দির গলায় নেহা কাক্কারের “মিলে হো তুম হামকো” গানটি হয়েছিল ভাইরাল।

স্বয়ং নেহা কক্কর তার এত সুন্দর গলায় হয়েছিলেন ম’ন্ত্রমু’গ্ধ, তিনি নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় বিপাশা দির ভূয়শী প্রশং’সা করেছিলেন। বিপাশা দির জয়যাত্রা যেন এভাবেই অব্যাহত থাকে, এই আশাই করি আমরা।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here