উইং কমান্ডার থেকে গ্রুপ ক্যাপ্টেন, পদোন্নতি অভিনন্দন বর্তমানের

উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানের পদোন্নতি হল। তিনি এখন গ্রুপ ক্যাপ্টেন হলেন। কয়েকবছর আগে তাঁর বীরত্বের নিদর্শন দেখেছিলেন আপামর ভারতবাসী। তাঁর জন্য গর্ব অনুভূত হয়েছিল সকল ভারতবাসীর মনে। ভারতীয় বায়ু সেনার উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানকে আটকে রাখতে পারেনি পাকিস্তান।

এবার গ্রুপ ক্যাপ্টেনের পদমর্যাদা দেওয়া হল তাঁকে। পাকিস্তানি এফ-১৬ বিমানকে যুদ্ধে গুলি করে নামানোর সৌর্য্য চক্র উপাধিতেও ভূষিত করা হয়েছে অভিনন্দন বর্তমানকে। সূত্রের দাবি, অভিনন্দন বর্তমানকে খুব তাড়াতাড়ি নতুন পদমর্যাদায় দায়িত্ব দেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ভারতীয় বায়ু সেনাতে গ্রুপ ক্যাপ্টেন পদটি ভারতীয় সেনার কর্ণেল মর্যাদার সমকক্ষ। পাকিস্তানের মাটিতে বিমান নিয়ে প্রবেশ করে পাক যুদ্ধ বিমান ধ্বংস করেছিলেন অভিনন্দন। তারপর থেকেই দেশের নায়ক ভারতীয় বায়ুসেনার উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান।

২০২১৯ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীর উপত্যকা ভারতীয় সেনাবাহিনীর রক্তে সিক্ত হয়েছিল। চল্লিশেরও বেশি ভারতীয় সিআরপিএফ জওয়ান নিহত হয়েছিল পুলওয়ামায় পাকিস্তানি আত্মঘাতী জঙ্গি হামলায়। প্রতিহিংসার আগুনে জ্বলে ওঠে সারা ভারতবাসী। পুলওয়ামায় হা”মলার ঠিক বারোদিনের মাথায় বোমারু যুদ্ধবিমান মিরাজ ২০০০-এর মাধ্যমে আকাশপথে পাকিস্তানের বালাকোটে হামলা চালায় ভারতীয় বায়ুসেনা৷ ধ্বং”স করা হয় বেশ কয়েকটি জঙ্গি ঘাঁটি।

তাতেও শিক্ষা হয়নি পাকিস্তানের। পরের দিনই আকাশপথে ভারতকে আক্রমণের চেষ্টা করে পাকিস্তান। তার উপযুক্ত জবাব দিয়েছে ভারত। পাকিস্তানের এফ-১৬ বিমান গুলি করে নামান ভারতীয় বায়ুসেনার উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান৷ কিন্তু সীমানা পেরিয়ে পাকিস্তানের প্রবেশ করার জন্য অভিনন্দনকে আটক করে বন্দী করা হয়। কূটনৈতিক চাপে পড়ে অবশেষে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান অভিনন্দনকে মুক্ত করতে বাধ্য হন। এবার সেই অভিনন্দন বর্তমানকে উন্নীত করা হল গ্রুপ ক্যাপ্টেন পদমর্যাদায়।