“বাংলার বাঘিনী ১, দিল্লির কাগুজে বাঘ ০”, মমতার পাশে মোদি বিরোধীরা

আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে বদলি করার বিষয় নিয়ে কেন্দ্র এবং রাজ্যের মধ্যে যে খেলা চলছে, তাতে বাংলার বাঘিনী দিল্লির কাগুজে বাঘেদের থেকে ১-০ গোলে এগিয়ে গেলেন।

শিব সেনা সাংসদ প্রিয়াঙ্কা চতুর্বেদী এমনটাই মনে করছেন। আলাপন ইস্যুতে মমতার পাশে দাঁড়িয়েছেন কংগ্রেস থেকে শুরু করে সমাজবাদী পার্টি, আম আদমি পার্টিও। রয়েছে কংগ্রেস।

দেশের বিরোধী শিবিরের মতামত, একুশের বিধানসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির ভরাডুবি হয়েছে। রাজ্যের সদ্যপ্রাক্তন মুখ্যসচিবের বদলির নির্দেশকে দিল্লির তরফে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর উপর আঘাত বলেই মনে করছেন বিরোধী শিবিরের একাংশ।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী তথা আপ নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়াল এই প্রসঙ্গে বলেন, “এটি রাজ্য সরকারের সঙ্গে ল’ড়া’ই করার সময় নয়। বরং, এসময় সবাইকে সঙ্গে নিয়ে একযোগে করোনা মোকাবিলার করা উচিত কেন্দ্রের।”

নির্বাচনের আগে থেকেই সমাজবাদী পার্টি মমতার পাশে। এআইসিসির তরফে আগেই বিবৃতি দিয়ে আলাপন ইস্যুতে বাংলার পাশে থাকার বার্তা দেওয়া হয়েছিল।

এদিন আবার নতুন করে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশং’সায় প’ঞ্চমুখ হলেন অধীর চৌধুরী। কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশ তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায়ের একটি টুইটকে রিটুইট করে লিখেছেন “সুখেন্দুবাবুর প্রতি সহমর্মিতা রইল।”

তৃণমূলের সূত্রে খবর, উদ্ধব ঠাকরে, অখিলেশ যাদব, অরবিন্দ কেজরিওয়ালদের মতো নেতাদের সঙ্গে গত দু’দিনে কথা হয়েছে তৃণমূলের উচ্চ নেতৃত্তের।

কথা হয়েছে কংগ্রেস নেতৃত্বের সঙ্গে। একুশের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বর্তমানে জাতীয় রাজনীতি বদলে গিয়েছে।

আরো একবার বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি একজোট হয়ে ল’ড়া’ই করার সম্ভাবনা প্রবল। এই বি’রো’ধী জোটের মধ্যমনী কি তবে মমতা? সমর্থন করছে কংগ্রেস।