মানুষের জন্য কাজ করতে হবে, একুশের টিকিট পেয়েই বললেন অদিতি মুন্সি

“দিদিই প্রকৃত বাংলার রূপকার। দিদির কথা শিরোধা’র্য করেই কাজ করতে চাই।” তৃণমূলে যোগদান করে সারেগামাপা খ্যাত গায়িকা অদিতি মুন্সি এমন কথাই বলেছিলেন। দমদমের সাংসদ সৌগত রায়ের হাত ধরে তৃণমূলে যোগ দেন তিনি।

এবার নির্বাচনের ময়দানেও হাজির হলেন তিনি। একুশের বিধানসভা নির্বাচনে রাজারহাট গোপালপুরের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।

টেলিভিশনের জন’প্রিয় রিয়ে’লিটি শো সারেগামাপা এর মঞ্চে মন মা’তা’নো সু’রেলা ক’ন্ঠে গানের মাধ্যমে, সকলের মন জয় করে নিয়েছিলেন জন’প্রিয় গায়িকা অদিতি মুন্সি। কী’র্ত’নের সঙ্গে ছিল তাঁর আ’ত্মি’ক যোগ।

এবার রাজনীতিতে এলেন মিষ্টি চে’হা’রার এবং সুরে’লা ক’ন্ঠের অধিকারিনী অদিতি। আধুনিক কী’র্ত’নের সু’পা’র’ষ্টার তিনি। বাংলার আদি সংগীতকে নতুন আ’ঙ্গিকে তুলে ধরার দিক থেকে সি’দ্ধহস্ত অদিতি।

বৃহস্পতিবার তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করে, সাংবাদিকদের অনুরোধে মুখ্যমন্ত্রীর প্রি’য় গান গেয়ে শোনালেন অদিতি মুন্সি।

শুক্রবার কালিঘাট থেকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একুশের বিধানসভা নির্বাচনের জন্য প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করতেই দেখা গেল, রাজারহাট-গোপালপুরে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হিসেবে নাম রয়েছে এই জনপ্রিয় গায়িকার।

তিনি জানিয়েছেন, তিনি নিজে একজন তৃণমূল পরিবারের সন্তান। শুধু তাই নয়, বিধাননগর পুরসভার কাউন্সিলর দেবরাজ চক্রবর্তীর সঙ্গে তাঁর বিবাহ ব’ন্ধ’নে আ’ব’দ্ধ হন তিনি। দেবরাজের স্ত্রী হওয়ার কারণে কিছুটা সময় তাকে রাজনীতির সঙ্গেও কাটাতে হয়।

মানুষের কাজে নামতে চান তিনি। সাধারণ মেয়ে হিসেবে সাধারণ মানুষের পাশে থাকতে চান অদিতি মুন্সি। বিধানসভার ময়দানেও তাঁর কোন অসুবিধা হবে না। দলের সঙ্গে কথা বলে প্রচারের কাজও শুরু করে দেবেন তিনি।