৬৪বছর বয়সে NEET পাশ করে MBBS-এ ভর্তি হলেন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মী

বয়স কেবল একটি সংখ্যামাত্র। একটি বয়সে গিয়ে যখন লোকেরা তাদের অসমাপ্ত স্বপ্নের কথা চিন্তা করতে থাকে, ওডিশার একজন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাঙ্ক,

কর্মকর্তা নিজের সেই স্বপ্নপূরণ করতে উদ্যত হয়েছেন। জয় কিশোর প্রধান, ওডিশার বারগড় জেলার আতাবিরা থেকে একজন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাঙ্ক আধিকারিক,

৬৪ বছর বয়সী, বীর সুরেন্দ্র সাই ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্সেস অ্যান্ড রিসার্চ (VIMSAR), NEET পরীক্ষা ক্লিয়ার করার পর এমবিবিএস,

কোর্সের জন্য একটি সরকারী পরিচালিত মেডিকেল কলেজে ভর্তি হয়েছেন। পূর্বে তিনি স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার ডেপুটি ম্যানেজার হিসাবে অবসর নিয়েছিলেন। আর এবার ডাক্তার হ‌ওয়ার স্বপ্নপূরণ করতে এগিয়ে চলেছেন। প্রধান বলে, “আমি আমার ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষার পরে মেডিকেল এন্ট্রান্স পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলাম, কিন্তু আমি এটি ক্র্যাক করতে ব্যর্থ হয়েছিলাম। পরে আমি বিজ্ঞানে আমার ব্যাচেলরদের অনুসরণ করি। যাইহোক, আমি সর্বদা মেডিকেল এন্ট্রান্সে আরেকটি শট দিতে চেয়েছিলাম এবং ব্যাঙ্ক থেকে অবসর নেওয়ার পরে ২০১৬ সাল থেকে এর জন্য প্রস্তুতি শুরু করি।”

যদিও NEET পরীক্ষার জন্য ২৫ বছর হল বয়সের ঊর্ধ্বসীমা কিন্তু ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করা একটি রিট পিটিশন প্রধানকে মেডিকেল প্রবেশিকা পরীক্ষায় বসার আরেকটি সুযোগ দিয়েছে। যেহেতু মামলাটি বিচারাধীন, তাই NEET ২৫ বছরের বেশি বয়সী সকল প্রার্থীকে মামলার ফলাফল সাপেক্ষে ভর্তির অনুমতি দিয়েছে। VIMSAR এর অধ্যাপক ললিত মেহের বলেন, মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হওয়া সবচেয়ে বয়স্ক ছাত্র হলেন তিনি। তাঁর কথায়, “এটি চিকিৎসা শিক্ষার ইতিহাসে একটি বিরল ঘটনা। এত বয়সে মেডিকেল স্টুডেন্ট হিসেবে ভর্তি হয়ে তিনি অবশ্যই একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।”

যমজ কন্যা এবং এক পুত্রের পিতা তিনি। তাঁর স্ত্রী একজন ফার্মাসিস্ট। তার এক মেয়ে এখন ব্যাচেলর অফ ডেন্টাল সার্জারি (বিডিএস) এর ছাত্রী এবং অন্যজন‌ও বিডিএস ছাত্রী ছিলেন কিন্তু গত ২০ নভেম্বর মারা যান‌। মেয়ে মারা যাওয়ার পর আর‌ও বেশি করে তিনি বদ্ধপরিকর হয়ে পড়েন। প্রধানের ছেলে এখন দশম শ্রেণীতে পড়ছে। আগামীতে তো তিনি আর প্র্যাকটিস করতে পারবেন না কোনো প্রতিষ্ঠানে, কিন্তু এর খরচ প্রচুর। এবিষয়ে প্রশ্ন করা হলে প্রধান বলেন, “আমি ৩০,০০০ টাকা জমা দিয়েছি। যদিও আমি জানি যে আমি চাকরি পাব না, আমি বিনামূল্যে চিকিৎসা দিয়ে মানুষকে সাহায্য করার চেষ্টা করব।