“সামনে ভোটের কথা মাথায় রেখেই পুজোর আগে ভাষণ”, মোদীকে খোঁচা সৌগতর

বাংলা জুড়ে উৎসবের মরসুম। ইতিমধ্যে মণ্ডপ সজ্জা থেকে শুরু করে বেশিরভাগ আয়োজন পরিপূর্ণ হয়েছে। এরইমধ্যে দুর্গাপূজায় ভারতবর্ষের উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ নিয়ে রাজনৈতিক মহলে ইতিমধ্যেই তরজা শুরু হয়ে গিয়েছে।

রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের অভিযোগ, বাঙালির আবেগ এই দুর্গা পূজাকে কেন্দ্র করে নিজেদের ভোট বাক্স আরো মজবুত করতে চাইছে বিজেপি। তাঁদের দাবি, দেশজুড়ে ক’রোণা গ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার কারণেই প্রধানমন্ত্রীর এই ভাষণ।

দুর্গাপূজা উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ নিয়ে সায়ন্তন বসু এবং সৌগত রায়ের মধ্যে বাকবিতণ্ডা লেগেই রয়েছে। দেশ জুড়ে করোনা সংক্রমনের দ্রুত প্রভা বৃদ্ধির কারণ হিসেবে প্রধানমন্ত্রীকে দায়ী করেছেন সৌগত রায়। কেন্দ্রীয় সরকারকে খোঁচা দিয়ে তিনি বলেন,”সঠিক নীতি না নেওয়ায় ক’রো’না বেড়েছে।” পুজোর আগে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণকে রাজনৈতিক অভিসন্ধি হিসেবে দাবি সৌগতর।

এদিন সৌগত রায় বলেন,”২০১৪ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত তো মোদি বার্তা দেননি। ভোটের কথা মাথায় রেখেই পুজোর আগে বলেছেন।” করোনা ভ্যাকসিন তৈরীর পর তার সুষম বন্টন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর চিন্তাভাবনা করা উচিত বলেও সৌগত দাবি করেন। তিনি বলেন,”রাজ্যগুলি অর্থের অভাব সত্ত্বেও মো’কাবিলা করেছে। ভ্যাকসিন বিলিতে যাতে কোনও সমস্যা না হয় তা নিশ্চিত করুন।”

সৌগত রায়ের প্রতিটি মন্তব্যের উপযুক্ত জবাব দিয়েছেন সায়ন্তন বসু। তিনি বলেন,”উৎসবের অতিরিক্ত উৎসাহ যেন দুঃখের কারণ না হয় সেকথা দেশবাসীকে মনে করিয়ে দিতেই বার্তা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

দেশের প্রধানমন্ত্রী তাঁর কর্তব্য পালন করেছেন।” প্রসঙ্গত, দুর্গাপূজা উপলক্ষে জাতির উদ্দেশ্যে মঙ্গলবার ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। লকডাউন পর্ব শেষ, আনলক পর্ব শুরু হয়ে গেলেও এখনো পর্যন্ত করোনা নির্মূল হয়নি বলেই দাবি করেন তিনি। উৎসবের মরসুমে যাতে সারা দেশবাসী সতর্ক ভাবে জীবন যাপন করেন এই বার্তাই দেন প্রধানমন্ত্রী।