৪০কিমি পথ, টানা ১৫ ঘন্টা পায়ে হেঁটে আহত মহিলাকে কাঁধে করে হাসপাতালে পৌঁছে দিলেন জওয়ানরা

দেশের সে’না জওয়ান দের কর্তব্য দেশকে রক্ষা করা। জীবন দিয়ে আগলে রাখা দেশের প্রতিটি মানুষকে। এবার তাই প্রমাণ করে দেখালো ইন্দো তিব্বত ৪১ নম্বর ব্যাটালিয়নের সে’না জওয়ানরা। আহত এক মহিলাকে কাঁধে করে বহুদূর পর্যন্ত হেঁটে চিকিৎসার জন্য পৌঁছে দিয়ে মানবিকতার নজির গড়লেন।

বর্ষাকাল পেরিয়ে গেলেও, বৃষ্টি থামে নি। তার ওপরে পাহাড়ি এলাকা। দুর্গম পথ। প্রতিটি পদক্ষেপে বিপদের আশঙ্কা। চড়াই-উতরাইয়ের মধ্যে দিয়ে রাস্তা। গাড়ি-ঘোড়া চলাচল এর একেবারেই উপযুক্ত কোনো রাস্তা নেই।

কিন্তু এসবের কোনও কিছুই বাধা দিতে পারেনি আইটিবিপি-র জওয়ানদের৷ চল্লিশ কিলোমিটার দুর্গম
গিরিপথে নিজেদের কাঁধে করে এক অসুস্থ মহিলাকে স্ট্রেচারে শুইয়ে হাসপাতালে পৌঁছে সেনা জওয়ানরা।

ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরাখণ্ডের পিথোরগড় জেলার সীমান্তবর্তি পাহাড়ি গ্রাম লাস্পায়। সূত্রের খবর, গত ২০
অগাস্ট ওই গ্রামেরই বাসিন্দা এক মহিলা পাহাড় থেকে নীচে পড়ে গিয়ে গুরুতর আহত হন৷ ফলে তার পা ভেঙে যায়৷ কিন্তু দীর্ঘ দিন ব্যাপী টানা বৃষ্টির জেরে পরিস্থিতি এতটাই প্রতিকূল ছিল যে আহত মহিলাকে হাসপাতালেও নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি৷ সেই অসম্ভবকে সম্ভব করে দেখালেন সে’না জওয়ানরা।

একই প্রাকৃতিক দু’র্যোগ তার মধ্যে দেরাদুন থেকে হেলিকপ্টার পাঠিয়ে ওই মহিলাকে উদ্ধার করা সম্ভবপর ছিল না। সেখানকার সীমান্ত রক্ষার দায়িত্বে থাকা আইটিবিপি ২৫ জন জওয়ান মহিলাকে উদ্ধারের জন্য এগিয়ে আসেন।

প্রথমে ২২ কিলোমিটার হেঁটে নিজেদের ক্যাম্প থেকে ওই গ্রামে পৌঁছন জওয়ানরা।তারপর একটি স্ট্রেচারে মহিলাকে শুইয়ে দিয়ে স্ট্রেচার কাঁধে তুলে হাসপাতালে উদ্দেশ্যে রওনা দেন তারা। প্রায় ১৫ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে মুন্সিয়ারি তে পৌঁছে যান। পুরো সফরের সময় লেগেছে ১৫ ঘন্টা। সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয় ওই মহিলাকে ভর্তি করার পর চিকিৎসা শুরু হয় তার।